নবজাতক থেকে ৬ মাস বয়সী শিশু কে কি খাওয়াবেন? কি নিয়মে খাওয়াবেন?

নতুন বাবা মায়েদের জন্য এটা বেশ একটা চ্যালেঞ্জিং ব্যাপার। জন্মের পর থেকে বাচ্চা কে কলোস্ট্রাম বা শাল দুধ এবং পরবর্তীতে বুকের দুধ কিংবা ফর্মুলা যেটাই খাওয়ান না কেন কখন খাওয়াবেন কি রুটিন মেনে খাওয়াবেন এই নিয়ে বেশ চিন্তিত থাকেন বাবা মায়েরা।

আবার ডাক্তার হয়ত বললেন একভাবে কিন্তু পরিবারের লোকজন, আত্নীয়-স্বজন বলে অন্যটা। মাঝে থেকে বাবা মা পড়েন দ্বিধায় কোনটা শুনবেন? কোনটা ভালো হবে বাচ্চার জন্য?

বাচ্চার খাওয়া নিয়ে নিচের পয়েন্টগুলো অনুসরণ করতে পারেনঃ
নিজের সহজাত প্রবৃত্তি কে কাজে লাগান। আপনার মন যেটায় ভালো মনে হবে সেটায় সায় দিন।

অভিজ্ঞতা সম্পন্ন শিশু বিশেষজ্ঞ যেভাবে বলেন সেভাবে করুন। তারা বাচ্চার স্বাস্থ্য সম্পর্কে সাম্প্রতিক সময়ের গবেষণা জানেন এবং এই বিষয়ে তারা পড়াশোনা করেছেন, অভিজ্ঞতা নিয়েছেন।

নিজের সিদ্ধান্তে বাচ্চার যত্ন নিন। তবে আশেপাশে যারা সত্যিকারের শুভাকাঙ্ক্ষী তাদের পরামর্শ নিতে পারেন যদি সেটা ভালো মনে হয় এবং আপনার শিশুর ডাক্তার যদি সেটায় একমত পোষণ করেন।

বাচ্চার খাওয়ানোর জন্য একটা গাইডলাইন অনুসরণ করা প্রয়োজন তবে যেহেতু প্রতিটা বাচ্চা ই আলাদা এবং কিছু বাচ্চা সময়ের আগে জন্ম নেয় তাই এই গাইডলাইন কিছুটা পরিবর্তন করা যেতে পারে।

বুকের দুধঃ

জন্মের পর থেকে একটা নবজাতক শিশুর জন্য সবচেয়ে উত্তম খাবার হল মায়ের বুকের দুধ। তবে বাচ্চা যদি পর্যাপ্ত পরিমাণে বুকের দুধ না পায় কিংবা মা যদি কোনো কারণে বাচ্চাকে বুকের দুধ খাওয়াতে সমর্থ না হন সেক্ষেত্রে বাচ্চা কে ফর্মুলা দিতে হবে। জন্মের পর থেকে ৫-৬ মাস পর্যন্ত একটা বাচ্চা কে এর বাইরে কোনো খাবার দেয়ার প্রয়োজন হয়না।

জন্মের পর একটা শিশুর পাকস্থলীর আকার থাকে একটা মার্বেল এর মত। জন্মের ১০ দিনের মাথায় সেটা বড় হয়ে একটা পিংপং বলের আকার ধারণ করে। বয়সের সাথে সাথে পাকস্থলীর আকার একটু একটু করে বাড়তে থাকে।

নবজাতক শিশু কে সাধারণত প্রতি ২৪ ঘন্টায় ৮-১২ বার খাওয়ানোর দরকার হয়। তবে যেসব শিশুকে ফর্মুলা দেয়া হয় তাদের তুলনায় যারা বুকের দুধ খায় তাদের একটু বেশি খাওয়ানোর দরকার হয়। কারণ বুকের দুধ বাচ্চার সহজেই হজম হয়।

কিভাবে বুঝবেন বাচ্চা পর্যাপ্ত পরিমাণে দুধ পাচ্ছে কিনা?
৪-৬ সপ্তাহ পর্যন্ত যদি আপনার শিশু ২৪ ঘন্টায় ৬-৮ বার প্রস্রাব করে এবং ৩ বার পায়খানা করে তাহলে বুঝবেন বাচ্চা পর্যাপ্ত দুধ পাচ্ছে।

বাচ্চা কে যখন খাওয়াবেন তার পেট ভরা পর্যন্ত অপেক্ষা করুন এবং নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর তাকে খাওয়ান। সে ঘুমিয়ে গেলে তাকে জাগিয়ে খাওয়াতে হবে। বুকের দুধ খাওয়া শিশুদের ক্ষেত্রে দিনের বেলায় চেষ্টা করুন প্রতি ২-২.৩০ মিনিট অন্তর অন্তর খাওয়াতে এবং রাতে ৪-৪.৩০ মিনিট অন্তর অন্তর খাওয়াতে।
আর ফর্মুলা দেয়া বাচ্চাদের ক্ষেত্রে ২৪ ঘন্টায় ৪-৫ বার খাওয়ানোর চেষ্টা করুন।

ফর্মুলা দেয়া বাচ্চার ক্ষেত্রে প্রথম মাসে প্রতিবার খাওয়ানোর সময় ৯০-১২০ মিলিলিটার করে দিতে হবে। ২ মাস বয়স থেকে বেশি বাচ্চার ক্ষেত্রে প্রতিবারে ১২০-১৮০ মিলিলিটার করে দিতে হবে। ৬ মাস এর বেশি বয়স হলে ১২০-১৮০ মিলিলিটার করে দিতে হবে। ফর্মুলা দেয়া বাচ্চাদের ক্ষেত্রে প্রতিবার খাবার পরে যদি বোতলে কিছু পরিমাণ রয়ে যায় সেটা অবশ্যই ফেলে দিবেন। পরের বার দেয়ার জন্য রেখে দেয়া যাবেনা। কারণ এই দুধ এভাবে রেখে দিলে দ্রুত ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ হয়ে পড়ে।

বাচ্চা কে খাওয়ার রুটিনে আনতে একটু সময় লাগতে পারে। এই সময়টুকু ধৈর্য ধরুন। অনেকেই হয়ত বলবে বাচ্চা খাওয়া পাচ্ছেনা, এটা খাও, ওটা খেওনা। এটা কর, ওটা করোনা। মাথা ঠাণ্ডা রেখে পারিপার্শ্বিক পরিবেশ মোকাবেলা করুন। আর অবশ্যই যে কোনো পরামর্শের জন্য একজন অভিজ্ঞ শিশু বিশেষজ্ঞর শরণাপন্ন হোন।

শুভকামনা সব বাচ্চা এবং তাদের মাবা মায়ের জন্য।

olebabu

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *